top of page

বর্ধমান থেকে মুম্বাই এর পথে সাথী

Updated: Feb 8, 2022




পূর্ব বর্ধমানের একটি প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে মুম্বাইয়ের জাতীয় মঞ্চে লড়াইটা মোটেও সহজ ছিল না। পূর্ব বর্ধমানের পাঁচড়ার একটি নিম্নবিত্ত পরিবারের মেয়ে সাথী দাস। বর্তমানে তিনি মুম্বাইয়ের একটি জনপ্রিয় হিন্দী চ্যানেলের রিয়েলিটি শো'তে এরিয়াল অ্যাক্ট করে সবার নজর কেড়েছেন।

রিয়েলিটি শো'এর চারজন বিচারক, শিল্পা শেট্টি কুন্দ্রা, কিরণ খের, বাদশা এবং মনোজ মুন্তাশির-দের অবাক করে দিয়েছে সাথীর এই অনন্য প্রচেষ্টা।


ইতিমধ্যেই গোল্ডেন বাটন পেয়ে টপ সিক্সটিনে পৌঁছে গেছেন সাথী এবং সেখানে গিয়ে প্রতিদিন প্রমাণ করছেন নিজেকে।


বর্ধমানের প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে মুম্বাইতে গিয়ে নিজেকে প্রমাণ করার লড়াইটা সহজ ছিল না মোটেও। তিন বছর বয়সে নাচের প্রতি ভালোবাসা । তারপর থেকে নাচই জীবন। তবে তাঁর এই দীর্ঘ যাত্রা পথে সর্বদা পাশে ছিলেন তাঁর মা। নাচের তালিম নিতে আসতে হত কলকাতায়। জামালপুরের পাঁচড়া থেকে কলকাতায় নাচ শিখতে আসা ছিল তাঁর রোজনামচা। সাথীর মায়ের কথায়, "আমাদের মেয়ে অনেক ছোটবেলা থেকেই নাচ শিখছে। তিন বছর বয়স থেকে আমার হাত ধরে ওর নাচের জগতে পদার্পণ। মেমারিতে একটা নাচের স্কুলে ওকে ভর্তি করিয়ে দিই তারপর থেকেই ওর এই যাত্রা শুরু।"


সাথীর এই লড়াইতে আপ্লুত তাঁর প্রতিবেশীরা। তাঁরা চান সাথী বাংলার মুখ উজ্জ্বল করে জিতে ফিরে আসুক। সাথীর লড়াইতে পাশে ছিলেন তাঁর বাবা । মেয়ের সাফল্যে বাবার মুখেও আনন্দের ছাপ স্পষ্ট। সাথীর স্বামী অভিষেক ও তাঁর স্বপ্নের পথে এগিয়ে যেতে সর্বদা তাঁর পাশে রয়েছেন। প্রতিদিন নিজের সাথে নিজে লড়াই করে নিজেকে যোগ্য প্রমাণ করে সাথী জিতে ফিরে আসুক এই প্রার্থনা করি।

43 views0 comments

Commentaires


bottom of page